মহাকাব্য কাকে বলে / মহাকাব্য কী | মহাকাব্য কয় প্রকার ও কি কি

ইংরেজি 'Epic' এর বাংলা প্রতিশব্দ মহাকাব্য। 'Epic' শব্দটি এসেছে গ্রীক 'Epices' বা 'Epos' থেকে। 'Epic' হচ্ছে দীর্ঘ বীরগাথা। এখানে বীরত্বব্যঞ্জক কাহিনী থাকে, যে ভাষাতেই লেখা হোক, তা বিষয় ও ভাষায় মহত্বের ব্যঞ্জনায় সমৃদ্ধ। 

মহাকাব্য রচনায় একটা বিশালতা, বিস্তৃতি, ঔদার্য ও সর্বজনীনতা থাকে। এই বিরাটর ও বিস্তৃতি পাঠক হ্রদয়ে এক মহিমান্বিত ভাবের সঞ্চার করে। মহাকাব্যে কবির বাক্তিলােত প্রকাশের পরিবর্তে ব্যাপকতর সমাজ, গোষ্ঠী, জাতির ঐতিহ্য ও চিন্তাভাবনা পরিচয় পাওয়া যায়।

মহাকাব্য কি বা কাকে বলে :- 

গ্রীক দার্শনিক অ্যারিস্টটল মহাকাব্য কি সে সম্পর্কে আলোচনা করেছেন তাঁর “Poctics” নামক গ্রন্থে তেইশ ও চব্বিশ আধ্যায়ে। সেখানে তিনি বলেছেন-
“They should be based on a single action, one that is complete whole in itself, with a beginning, a middle, and an end so as to enable the work to produce its own proper pleaser with all the organic unity of a living creature ..... As for its metre, the heroic has been assigned to it from experience.”


ড্রাইডেন মহাকাব্য কাকে বলে তা বলতে গিয়ে বলেছেন-
“ A heroic poem which epitomises the feeling of many ages and voices the aspirations and imagination of all people.”


জিওফ্রে হারফাম এবং এম এইচ আব্রামস মহাকাব্যে কি আলোচনা করতে গিয়ে বলেছেন -
“In its strict sense the term epic or heroic poem is applied to a work that meets at least the following criteria; it is a long verse narrative on a serious subject, told in a formula and elevated style, and centered on a heroic or quasi divine figure on whose actions depends the fate of a tribe, a nation, or the human race.”
মহাকাব্য কাকে বলে

মহাকাব্য কয় প্রকার ও কি কি :-

মহাকাব্যকে দুভাগে ভাগ করা হয় যথা -

১ - ধ্রুপদী মহাকাব্য বা Classical Epic এবং

২ - সাহিত্যিক বা আলংকারিক মহাকাব্য বা Literary Epic

আরও পড়ুন :- গীতিকবিতা কি ও কয়টি?

সারা বিশ্বে চারটি ধ্রুপদী মহাকাব্য আছে। এগুলো হলো-

গ্রীক ভাষায় লেখা লেখা দুটি ধ্রুপদী মহাকাব্য বা Classical Epic হলো -

১ - হোমারের ইলিয়ড় এবং

২ - ওডিসি মহাকাব্য।

সংস্কৃত ভাষায় লেখা দুটি ধ্রুপদী মহাকাব্য বা Classical Epic হলো -

১ - বাল্মীকির রামায়ণ ও

২ - ব্যাসদেবের মহাভারতের।

ব্যাসদেব লিখিত মহাভারত সম্পর্কে বলা হয়ে থাকে 'যা নেই মহাভারতে তা নেই ভারতে'। অর্থাৎ ভারতবর্ষকে ধারণ করে থাকে মহাভারত একটি যথাযথ অর্থে মহাকাব্য হয়ে উঠেছে।

আঠারো পর্বের বিস্তৃত মহাকাব্য মহাভারত হোমারের ইলিয়ড ও ওডিসি-র মিলিত আকারের থেকেও আটগুণ বড়।

সাহিত্যিক মহাকাব্য মেঘনাদবধ :-

মেঘনাদবধ' কাব্যই বাংলার প্রথম সাহিত্যিক মহাকাব্য। বাংলা সাহিত্যের অন্যতম শ্রেষ্ঠ সাহিত্যিক মহাকাব্যটি হল মধুসূদন দত্তের“মেঘনাদবধ” কাব্য। আমরা কিছু আলোচনার মাধ্যমে দেখতে পারি ‘মেঘনাদবধ' কতটা সার্থক মহাকাব্য হয়ে উঠেছে।

১ - 'মেঘনাদ বধ মহাকাব্যে' রয়েছে নয়টি সর্গ। অর্থাৎ সাহিত্যিক মহাকাব্য অনুযায়ী এটি মহাকাব্য হওয়ার যোগ্য।

আরও পড়ুন :- ছোট গল্পের বৈশিষ্ট্য লেখ?

২ - মধুসূদন দত্ত প্রতিটি সর্গের সমাপ্তিতে সর্গের একটি করে শিরোনাম দিয়েছেন। যেমন অভিষেক নামঃ প্রথম সর্গ সমাপ্ত। এরকমভাবে দ্বিতীয় সর্গ ‘উদ্যোগ’, তৃতীয় সর্গ ‘সমাগম' ইত্যাদি নামকরণ করেছেন যা লক্ষণ সম্মত । নামকরণগুলি করা হয়েছে সর্গের বিষয় বস্তুভিত্তিক।

৩ - ‘মেঘনাদ বধ’ এর শুরুতে মাইকেল মধুসূদন দত্ত সরস্বতী দেবীর বন্দনা করেছেন, বাল্মীকিকে প্রণাম জানিয়েছেন।

৪ - ‘মেঘনাদ বধ’ এর আখ্যানবস্তু নেওয়া হয়েছে মহাকাব্য 'রামায়ণ' থেকে। রামায়ণের লঙ্কাকান্ডের তিনদিন দু রাত্রি কাহিনী এখানে স্থান পেয়েছে। রাবণ- চিত্রাঙ্গদার পুত্র বীরবাহুর মৃত্যু বর্ণনা থেকে মেঘনাদের চিতায় স্বর্ণমঠ তৈরীর কাহিনি। দ্রুতগতিতে ধাবমান আখ্যান কাহিনী পুরাণকেন্দ্রিক।

৫ - 'মেঘনাদ বধ' কাব্যের পটভূমি স্বর্গ-মর্ত্য-পাতাল বিস্তৃত মর্তলোকে ঘটেছে মূল কাহিনী। ঘটনার প্রয়োজনে দ্বিতীয় সর্গে এসেছে স্বর্গ, অষ্টম সর্গে নরক এবং প্রথম সর্গে পাতাল এর প্রেক্ষাপট। অর্থাৎ প্রাচ্যালংকারিকদের স্বর্গ-মর্ত্য পাতালের পটভূমির শর্ত রক্ষিত হয়েছে।

৬ - 'মেঘনাদ বধ মহাকাব্যে' কেবল যুদ্ধ বিধ্বংসীর বর্ণনা নেই, এতে আছে রূপ-প্রকৃতির বর্ণনা, আরও আছে মানবের চিত্রকল্প এবং মানব জীবন চর্যার বিভিন্ন দিক।

৭ - বাংলা কাব্যকে মধুসূদন দত্ত নতুন ছন্দ উপহার দিয়েছেন- অমুত্রাক্ষর ছন্দ। ‘মেঘনাদ বধ' কাব্যে ভাবানুসারী এই ছন্দ প্রথম থেকে শেষ অবধি ব্যবহৃত। মিলটনের ‘Blank verse’ হন্দের আদলে বাংলা পয়ারে ছন্দকে ভেঙে অমিত্রাক্ষর করলেন মধুসূদন । এই ছন্দ যথেষ্ট ভাবগম্ভীর।।

আরও পড়ুন :- সনেট কবিতা কি? 

৮ - মেঘনাদবধ' মহাকাব্যের নায়ক বা হিরো মহাকাব্য রামায়ণের নায়ক বা হিরো রামচন্দ্র নন। বরং তথাকথিত ভিলেন লঙ্কেশ্বর রাবণ এ মহাকাব্যের নায়ক বা হিরো। বরাবণ ছিলেন স্বর্ণলঙ্কার রাজাধীপতি। যে শুধু উচ্চবংশীয়ই ছিলেন না, ছিলেন বীর যোদ্ধাও। সবমিলিয়ে যেন তিনি ছিলেন রুচিমান জাতির নায়ক। তাই তাঁর নায়ক হতে এই কাব্যে কোনো বাধা নেই।

৯ - পৌরাণিক কাহিনীর মধ্য দিয়ে মধুসূদন সমকালীন যুগজীবনকে তুলে ধরতে চেয়েছেন। উনিশ শতকের পরাধীন দেশের অন্তরের স্বর এখানে প্রতিফলিত।

উপরোক্ত এই লক্ষণগুলি বিচার করে আমরা বলতে পারি মাইকেলের মধুসূদনের মেঘনাদবধ কাব্যটি যথার্থ সাহিত্যিক মহাকাব্য। এটাই বাংলার শ্রেষ্ঠ মহাকাব্য

বিশেষ কিছু মহাকাব্যের নাম :-

মহাকাব্যের নামলেখকের নাম
রামায়ণবাল্মীকির
মহাভারতেরব্যাসদেবের
ইলিয়ড়হোমার
ওডিসিহোমার
মেঘনাদবধমাইকেল মধুসুদন দত্ত
বৃত্র সংহারহেমচন্দ্র বন্দ্যোপধ্যায়
রৈবতক নবীননবীন চন্দ্র সেন
কুরুক্ষেত্রনবীন চন্দ্র সেন
প্রভাসনবীন চন্দ্র সেন
পৃথ্বীরাজযোগীন্দ্রনাথ বসু
শিবাজীযোগীন্দ্রনাথ বসু
মহাশ্মশানকায়কোবাদ
কাসেমবধকাব্যয়হামিদ আলী
হেলেনা কাব্যআনন্দ চন্দ্র মিত্র

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

2 মন্তব্যসমূহ

  1. অসাধারণ দাদা বাংলার এমন পোষ্ট আরও চাই

    উত্তরমুছুন
  2. মেঘনাদবধ কাব্য একটি মহাকাব্য রামায়ণ থেকে গৃহীত। তাই সেটা কি করে অন্য একটি মহাকাব্য হতে পারে?

    উত্তরমুছুন

Please do not enter any spam link in the comment box.