উপন্যাস কাকে বলে বা কি | উপন্যাস কত প্রকার ও কি কি এবং উপাদান সমূহ

উপন্যাস (uponnash kake bole) বলতে এমন একটি বিশেষ সাহিত্য সৃষ্টি বোঝায় যাতে লেখকের জীবনদর্শন ও জীবনানুভূতি কোন বাস্তবকাহিনি অবলম্বনে বর্ণনাত্মক শিল্পকর্মে রূপায়িত হয়। সমগ্র জীবনের প্রতিচ্ছবি এতে ফুটে ওঠে বলে এর পটভূমি থাকে বিস্তৃত।

ব্যাপকতর আকৃতি, সামঞ্জস্যপূর্ণ ঘটনাবিন্যাস, আকর্ষণীয় গল্পরস, বৈশিষ্ট্যপূর্ণ চরিত্রসৃষ্টি, মনোমুগ্ধকর বর্ণনাভঙ্গি, সাবলীল সংলাপ ইত্যাদি লক্ষণ সার্থক উপন্যাসে অভিপ্রেত।

উপন্যাসের প্রকৃতিগত বৈশিষ্ট্য বিশ্লেষণ করলে দেখা যাবে যে, এতে কোন একটি কাহিনির বর্ণনাই প্রধান হয়ে থাকে। মানব জীবনের ঘটনাবলির বর্ণনাদানের সঙ্গে সঙ্গে জগৎ ও জীবনসম্পর্কিত লেখকের বিচিত্র উপলব্ধি উপন্যাসের মধ্যে প্রকাশ পায়।

আরও পড়ুন :- কমেডি নাটক কাকে বলে? এর বৈশিষ্ট্য?

উপন্যাসের ইংরেজি প্রতিশব্দ Novel শব্দটি ইংরেজিতে এসেছে ইতালিয় শব্দ novella থেকে, আর এর অর্থ হচ্ছে tale, piece in news।
'উপন্যাস' শব্দটি বিশ্লেষণ করলে পাওয়া যায় উপ+নি+অস; অর্থাৎ 'উপ' পূর্বক, 'নি' পূর্বক, 'অস' ধাতুর সঙ্গে 'অ' প্রত্যয় যোগে ‘উপন্যাস' শব্দটি গঠিত, যার অর্থ 'উপন্যাস'।
বাংলা উপন্যাস কি বা কাকে বলে | বিখ্যাত সেরা উপন্যাস বই pdf

উপন্যাস কি বা কাকে বলে :-

গ্রন্থকারের ব্যক্তিগত জীবন দর্শন ও জীবনানুভূতি কোন বাস্তব কাহিনীকে অবলম্বন করে যে বর্ণনাত্মক শিল্পকর্মে রূপায়িত হয়, তাকে উপন্যাস বলে। 

উপন্যাসের সংজ্ঞার্থ নির্ণয় করে J. A Cuddon তাঁর 'Dictionary of literary terms'-এ লিখেছেন -

"It is a form of story of prose narrative containing characters, action and incidents and perhaps a plot. অন্যভাবে বলা যায়, Novel is a fictitious prose narrative or tale presenting a picture of the man and women portrayed."


উপন্যাসের শ্রেণীবিভাগ:-

বৈচিত্র্যপূর্ণ বিষয় উপন্যাসের উপজীব্য বলে উপন্যাসের শ্রেণীবিভাগএও বৈচিত্র্যের সৃষ্টি হয়েছে। উপন্যাসের শ্রেণীবিভাগ সম্পর্কে অনেকের মধ্যেই মতভেদ রয়েছে ।


১ - ঐতিহাসিক উপন্যাস :

ঐতিহাসিক উপন্যাস রচিত হয় ইতিহাসের কাহিনি অবলম্বনে। ইতিহাসের প্রতি আনুগত্য রেখে শিল্পসৌন্দর্য মণ্ডিত হয়ে ওঠে এই শ্রেণির উপন্যাস।

উপন্যাস কাকে বলে? এ সম্পর্কে উপরে আমরা আলোচনা করলাম এবার উপন্যাস কত প্রকার ও কি কি? তা আলোচনা করবো।

২ - সামাজিক উপন্যাস :-

সামাজিক উপন্যাসে প্রতিফলিত হয় সমাজজীবন। সমাজের চিত্রের সঙ্গে সঙ্গে সামাজিক সমস্যা এতে স্থান পেতে পারে।

৩ - আঞ্চলিক উপন্যাস :-

এই ধরনের উপন্যাসে কোনো এক বিশেষ অঞ্চলের মানুষের কথা, পরিবেশ, জীবনচর্যা সহ শিল্পসম্মতরূপে পরিবেশিত।

৪ - পৌরাণিক উপন্যাস :-

পুরাণ বা মিথকে নির্ভর করে পৌরাণিক উপন্যাস রচিত হয়।

৫ - আত্মজীবনীমূলক উপন্যাস :-

আত্মজীবনীমূলক উপন্যাসে লেখকের ব্যক্তিজীবনের প্রতিফলন ঘটে।

৬ - হাস্যরস উপন্যাস :-

হাস্যরস প্রধান উপন্যাসে একটি অসাধারণ দৃষ্টিকেন্দ্র থেকে জীবনের পর্যবেক্ষণ এবং তার প্রচলিত গতির মধ্যে বক্ররেখা ও সূক্ষ্ম অসংগতির কৌতুককর আবিষ্কার করা হয়।

৭ -কাব্যধর্মী উপন্যাস :-

এই ধরনের উপন্যাসে আখ্যানভাগ নিয়ন্ত্রণকুশলতা বা চরিত্রসৃষ্টির নৈপুণ্য অপেক্ষা লেখকের কবিদৃষ্টি জীবনদর্শনকে স্নিগ্ধ ও মধুর করে তোলে এবং গীতিধর্মিতা প্রাধান্য পায়।

৮ - ডিটেকটিভ বা রহস্য উপন্যাস :-

এই রহস্য মূলক উপন্যাসে অপরাধমূলক ঘটনা স্থান পায় এবং পুলিশী তৎপরতার মাধ্যমে কূটবুদ্ধির প্রখরতা প্রকাশ পায়।

৯ - রোমান্স উপন্যাস :-

রোমান্স প্রধান উপন্যাসে লেখকের অতীতপ্রীতি ও কল্পনাভিসারী মনের পরিচয় রূপলাভ করে।

উপন্যাসের উপাদান :-

উপন্যাসের প্রধান উপাদান কি? একটি উপন্যাস তৈরীর ক্ষেত্রে প্রধান ৫টি উপাদানের উপর গুরুত্ব দেওয়া হয়।

১ - ঘটনা
২ - চরিত্র
৩ - সংলাপ
৪ - ভাষা এবং
৫ - ঔপন্যাসিকের জীবন দর্শন।

বিখ্যাত কিছু ঔপন্যাসিক ও তাঁর উপন্যাস রচনা :-


ভূদেব মুখোপাধ্যায় :-

বাংলা ইতিহাস নির্ভর উপন্যাসের ক্ষেত্রে ভূদেব মুখোপাধ্যায়ের একটি মূল্যবান স্থান আছে। ভূদেব মুখোপাধ্যায়ের ‘সফল স্বপ্ন' ও ‘অঙ্গুরীয় বিনিময়’ দুটি ঐতিহাসিক উপন্যাস। 

সফল স্বপ্ন’ এর উৎস কন্টারের ‘The Traveler's Dream' এবং 'অঙ্গুরীয় বিনিময়' এর উৎস 'The Marhatta Chief' এই উপন্যাসে শিবাজীর কাহিনি ভারতীয়দের মনে জাতীয় চেতনা সঞ্চারে সহায়ক হয়েছে।

তাঁর অন্য দুটি উপন্যাস ‘পুষ্পাঞ্জলি’ ও ‘স্বপ্নলব্ধ ভারতবর্ষের ইতিহাস'।
উপন্যাসপ্রকাশিতpdf
সফল স্বপ্নএখানে
অঙ্গুরীয় বিনিময়এখানে
পুষ্পাঞ্জলি১৮৬৩এখানে
স্বপ্নলব্ধ ভারতবর্ষের ইতিহাস১৮৯৫এখানে

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় :-

বঙ্কিমচন্দ্রের হাতে উপন্যাসের শিল্প সমৃদ্ধ পূর্ণ প্রতিষ্ঠা। মৌলিক কল্পনা ও রচনাগুণের দ্বারা তিনি চোদ্দটি বিচিত্র উপন্যাস লিখেছিলেন।
উপন্যাসপ্রকাশিতpdf
দুর্গেশনন্দিনী১৮৬৫এখানে
কপালকুণ্ডলা১৮৬৬এখানে
মৃণালিনী১৮৬৯এখানে
বিষবৃক্ষ১৮৭৩এখানে
ইন্দিরা১৮৭৩এখানে
যুগলাঙ্গুরীয়১৮৭৪এখানে
চন্দ্রশেখর১৮৭৫এখানে
রজনী১৮৭৭এখানে
কৃষ্ণকান্তের উইল১৮৭৮এখানে
রাজসিংহ১৮৮২এখানে
আনন্দমঠ১৮৮৪এখানে
দেবী চৌধুরাণী১৮৮৪এখানে



রাধারাণী১৮৮৬এখানে
সীতারাম১৮৮৭এখানে

'দুর্গেশনন্দিনীতে’ মুঘল ও পাঠানের সংগ্রামের বর্ণনা থাকলেও বিমলা, আয়েষা, তিলোত্তমা চরিত্রগুলি লেখকের কল্পনাপ্রসূত।

'কপালকুন্ডলা' উপন্যাসের কাহিনি সাগর সঙ্গমের অরণ্যভূমি থেকে সুদূর দিল্লী পর্যন্ত বিস্তৃত। সেখানে প্রকৃতি পালিতা নারীর সামাজিক সম্পর্কের বন্ধনে আবদ্ধ করা সম্ভব কিনা তাও উল্লেখযোগ্য।

মৃণালিনী’ উপন্যাসে মুসলমান বঙ্গবিজয়ের কাহিনি থাকলেও মৃণালিনীর প্রণয়কথা গুরুত্ব পেয়েছে।

রমেশ চন্দ্র :-

রমেশচন্দ্রের দুটি ঐতিহাসিক উপন্যাস –
উপন্যাসপ্রকাশিতpdf
মহারাষ্ট্র জীবন প্রভাত১৮৭৮এখানে
রাজপুত জীবনসন্ধ্যা১৮৮৯এখানে
এ ছাড়াও ইতিহাসমূলক ও রোমান্স উপন্যাস হলো
উপন্যাসপ্রকাশিতpdf
বঙ্গবিজেতা১৮৭৪এখানে
মাধবীকঙ্কণ১৮৭৭এখানে

স্বর্ণকুমারী দেবী :-

রবীন্দ্রনাথের অগ্রজা স্বর্ণকুমারী দেবীর 'দীপনির্বাণ' উপন্যাসে পৃথ্বীরাজ ও মহম্মদ ঘোরীর সংঘর্ষ নিয়ে আলোচনা করেছেন। এবং 'কাহাকে' এটি একটি গার্হস্থ্য উপন্যাস। এ উপন্যাসে নায়িকার সূক্ষ্ম মনোবিশ্লেষণ বাংলা উপন্যাসের ক্ষেত্রে শ্রেষ্ঠতম অবদান।
উপন্যাসপ্রকাশিতpdf
দীপনির্বাণ১৮৭৬এখানে
ছিন্নমুকুল১৮৭৯এখানে
বিদ্রোহ১৮৯০এখানে
ফুলের মালা১৮৯৫এখানে
কাহাকে১৮৯৮এখানে

তারকনাথ গঙ্গোপাধ্যায় :-

তারকনাথ গঙ্গোপাধ্যায় 'real ordinary life' এর চিত্র অঙ্কন করেছেন তাঁর 'স্বর্ণলতা' উপন্যাসে। এটি তাঁর প্রথম ও শ্রেষ্ঠ উপন্যাস হিসেবে বিবেচিত হয়।
উপন্যাসপ্রকাশিতpdf
স্বর্ণলতা১৮৭৪এখানে

প্রতাপচন্দ্র ঘোষ :-

প্রতাপচন্দ্র ঘোষ ‘বঙ্গাধিপ পরাজয়' নামে একটি সুবৃহৎ ঐতিহাসিক উপন্যাস রচনা করেছিলেন। প্রতাপ আদিত্যের কাহিনির বিষয়।
উপন্যাসপ্রকাশিতpdf
বঙ্গাধিপ পরাজয়১ম খণ্ড, ১৮৬৯
২য় খণ্ড ১৮৮৪
এখানে

শিবনাথ শাস্ত্রী :-

শিবনাথ শাস্ত্রীর উপন্যাসগুলির মধ্যে 'মেজবৌ', 'যুগান্তর', 'নয়নতারা' প্রভৃতির নাম করা যেতে পারে। এদের মধ্যে 'যুগান্তর' সামাজিক উপন্যাস ও বাকি দুটি পারিবারিক উপন্যাস হিসেবে খ্যাতি অর্জন করে।
উপন্যাসপ্রকাশিতpdf
মেজবৌ১৮৮০এখানে
যুগান্তর১৮৯৫এখানে
নয়নতারা১৮৯৯এখানে

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর :-

১৮৭৭ খ্রিস্টাব্দে কাদম্বরী দেবীর প্রেরণায় রবীন্দ্রনাথ প্রথম উপন্যাস লিখেছিলেন 'করুণা'। বিষয় বৈচিত্র্যের পরিপ্রেক্ষিতে রবীন্দ্র-উপন্যাসগুলিকে কয়েকটি শ্রেণিতে বিন্যস্ত করা যেতে পারে -

১ - ইতিহাস নির্ভর উপন্যাস :- 
উপন্যাসপ্রকাশিতpdf
বউ ঠাকুরাণীর হাট১৮৮৩এখানে
রাজর্ষি১৮৮৭এখানে
বউ ঠাকুরাণীর হাট' উপন্যাসে ইতিহাসের অংশটি হল রাজা প্রতাপাদিত্যের কাহিনি। প্রস্তুতিকালীন অপরিণতির চিহ্ন এতে আছে।

'রাজর্ষি' উপন্যাসের কাহিনির উৎস ত্রিপুরার রাজবংশের ইতিহাস পটভূমিও ত্রিপুরা। কেন্দ্রীয় চরিত্র গোবিন্দমাণিক্য ত্রিপুরেশ্বরী মন্দিরে বলিদান বন্ধ করে দেওয়ায় রাজা ও পুরোহিত রঘুপতির মধ্যে দ্বন্দ্ব বাধে। শেষে রঘুপতির পালিত পুত্র জয়সিংহের আত্মদানে এই বিরোধের নিষ্পত্তি ঘটে। প্রথা ও সংস্কারের চেয়ে প্রেম-ভালোবাসার প্রভাব যে কত গভীর তা রঘুপতির হাহাকারে বর্ণিত।

রবীন্দ্রনাথের এই দুটি প্রথম উপন্যাস ঊনবিংশ শতকের বাংলা উপন্যাস ধারার অন্তর্ভুক্ত।

২ - সামজিক উপন্যাস :-
উপন্যাসপ্রকাশিতpdf
চোখের বালি১৯০৩এখানে
নৌকাডুবি১৯০৬এখানে
যোগাযোগ১৯২৯এখানে
ঔপন্যাসিক রবীন্দ্রনাথের সৃষ্টি প্রতিভার বিশেষত্ব ধরা পড়েছে ‘চোখের বালি’তে। বিনোদিনী মহেন্দ্র-বিহারী-আশার পারস্পরিক আকর্ষণ-বিকর্ষণের টানে ‘আঁতের কথা' গড়ে উঠেছে। বিনোদিনীর তীক্ষ্ণ বাস্তববোধ ও নিরপেক্ষ দৃষ্টিভঙ্গি বাংলা উপন্যাসকে বিংশ শতকের আধুনিকতার মাঝখানে দাঁড় করিয়ে দিল।

'চোখের বালি'র পরবর্তী উপন্যাস ‘নৌকাডুবি’ প্লটের আকর্ষণই প্রধান। নায়ক রমেশ চরিত্রটি বিবর্ণ। একটা বিমূঢ় অসহায়তা তার চরিত্র বড় হয়ে উঠেছে।

‘বিচিত্রা’ পত্রিকায় প্রকাশিত ‘যোগাযোগ’ গ্রন্থবদ্ধ হয়। বনেদি অভিজাত সুশিক্ষায় মার্জিত দাদা বিপ্রদাসের স্নেহলালিত কুমুদিনী। বিয়ে হল স্থূল রুচিসর্বস্ব বিত্তবান মধুসূদনের সঙ্গে। পটভূমির বিশালতা ও শিল্পনৈপুণ্যের বিচারে ‘যোগাযোগ’ বাংলা উপন্যাসে এক নতুন সংযোজন।

৩ - স্বদেশ চেতনামূলক উপন্যাস :-
উপন্যাসপ্রকাশিতpdf
গোরা১৯১০এখানে
ঘরে বাইরে১৯১৬এখানে
চার অধ্যায়১৯৩৪এখানে
গোরা' উপন্যাসে স্বদেশচেতনার সর্বোত্তম প্রকাশ ঘটেছে। উপন্যাসের পটভূমি কলকাতা মহানগরী। স্বদেশের স্বরূপ জানবার জন্য গোরা আগ্রহী ছিল। প্রথমে সে ছিল নিষ্ঠাবান হিন্দু। পরে সে জানতে পারে, সে জাতে আইরিশ। কৃষ্ণদয়াল ও আনন্দময়ীর পালিত পুত্র। জন্মরহস্য জেনে ‘গোরা’ পৌঁছেছে জাতিভেদমুক্ত স্বদেশচেতনায়।

রবীন্দ্রনাথের স্বদেশ জিজ্ঞাসার ভিন্নতর রূপ মূর্ত হয়েছে 'ঘরে বাইরে' এবং 'চার অধ্যায়ে'। আন্দোলনের নামে জাতীয় উন্মাদনার মত্ততার চিত্ররূপ 'ঘরে বাইরে'। সন্দীপ চরিত্র গোটা রবীন্দ্রসাহিত্যে বিস্ময়কর সৃষ্টি।

'চার অধ্যায়' উপন্যাসে সন্ত্রাসবাদে অনাস্থা, মনুষ্যত্বকে বেশি মূল্য দেওয়া ও সংকীর্ণ জাতীয়তাবাদের বিরুদ্ধতা লক্ষণীয়।

৪ - রোমান্টিক উপন্যাস :-
উপন্যাসপ্রকাশিতpdf
চতুরঙ্গ১৯১৬এখানে
শেষের কবিতা১৯২৯এখানে
দুই বোন১৯৩৩এখানে
মালঞ্চ১৯৩৪এখানে
রবীন্দ্রনাথের সমস্ত উপন্যাসই কবির কলমে লেখা। তবু 'চতুরঙ্গ' ও 'শেষের কবিতা' এ ব্যাপারে অনন্য। 'চতুরঙ্গ' অখণ্ড জীবনরূপের চারটি অঙ্গের কাহিনি'। এই চারটি অঙ্গ-জ্যাঠামশায়- শচীশ দামিনী-শ্রীবিলাস। এরা প্রত্যেকে অন্তর্মগ্ন ভাষায় নিজের মনোবিশ্লেষণ করেছে। এ উপন্যাসে চরিত্রগুলির জীবনসত্য অন্বেষণের প্রচেষ্টা এক নতুন আঙ্গিকে দেখা দিয়েছে।

'শেষের কবিতা' উপন্যাসটি প্রাণপ্রাচুর্যে উচ্ছল, জীবনরসে উদীপ্ত, বুদ্ধিবাদের উজ্জ্বলতায় অনন্য। এর কেন্দ্রীয় চরিত্র অমিত যেন এক অনর্গল বেজে চলা জীবনসঙ্গীত। অমিত কেতকী, লাবণ্য-শোভনলালের চতুর্ভুজ সম্পর্ক প্রেমমূলক উপন্যাস রচনায় তাঁর অদ্বিতীয় ক্ষমতার প্রমাণ।

'দুই বোন' উপন্যাসের দুই প্রান্তে রয়েছে শর্মিলা ও ঊর্মিমালা। শশাঙ্কের জীবনকে কেন্দ্র করে তার ছায়াবিস্তার। নারীর শ্রেয়সী রূপ প্রেয়সী রূপের তুলনায় প্রধান এরূপ একটি বক্তব্য প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা আছে।

'মালঞ্চ' উপন্যাসের সমস্যাকে উল্টেভাবে দেখানো হয়েছে। এখানে নায়ক আদিত্যকে কেন্দ্র করে নীরজা ও সরলার প্রণয়-দ্বন্দ্ব দেখা দিয়েছে। কাহিনির শেষে নীরজার বেদনা প্রেমের মালঞ্চে ট্যাজেডির দীর্ঘশ্বাসকে ঘনীভূত করেছে।

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় :-

শরৎচন্দ্র বাঙালি উপন্যাসিকদের মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় ছিলেন। আবেগের বাড়াবাড়ি, পল্লীজীবনের দুঃখ-বেদনা, সমস্যা-সংকট তাঁর উপন্যাসের মূল ভিত্তি।
উপন্যাসপ্রকাশিতpdf
বড়দিদি১৯১৩এখানে
বিরাজ বৌ১৯১৪এখানে
বিন্দুর ছেলে১৯১৪এখানে
পরিণীতা১৯১৪এখানে
পণ্ডিতমশাই১৯১৪এখানে
মেজদিদি১৯১৫এখানে
পল্লীসমাজ১৯১৬এখানে
বৈকুণ্ঠের 'উইল১৯১৬এখানে
চন্দ্রনাথ১৯১৬এখানে
অরক্ষণীয়া১৯১৬এখানে
নিষ্কৃতি১৯১৭এখানে
শ্রীকান্ত১৯১৭এখানে
চরিত্রহীন১৯১৮এখানে
গৃহদাহ১৯২০এখানে
দেনাপাওনা১৯১৩এখানে
বামুনের মেয়ে১৯২০এখানে
নববিধান১৯২৪এখানে
পথের দাবী১৯২৬এখানে
শেষ প্রশ্ন১৯৩১এখানে
বিপ্রদাস১৯৩৫এখানে
শেষের পরিচয়১৯৩৯এখানে

বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায় :-

বিভূতিভূষণ কল্লোল গোষ্ঠীর লেখক হয়েও বাংলার অস্থির সমাজ পরিবেশে তিনি ছিলেন স্বতন্ত্র। বৈচিত্র্যে ও সংখ্যাধিক্যে বিভূতিভূষণের রচনাসমূহ বিস্ময় জাগায়। তিনি ছিলেন জীবনের উপভোক্তা। তাঁর রচনা সমূহ হলো-
উপন্যাসপ্রকাশিতpdf
পথের পাঁচালী১৯২৯এখানে
অপরাজিত১৯৩২এখানে
দৃষ্টিপ্রদীপ১৯৩৫এখানে
আরণ্যক১৯৩৯এখানে
আদর্শ হিন্দু হোটেল১৯৪০এখানে
বিপিনের সংসার১৯৪১এখানে
দুই বাড়ী১৯৪১এখানে
অনুবর্তন১৯৪২এখানে
দেবযান১৯৪৪এখানে
কেদার রাজা১৯৪৫এখানে
অথৈ জল১৯৪৭এখানে
ইছামতী১৯৫০এখানে
দম্পতি১৯৫২এখানে
অশনি-সঙ্কেত১৯৫৯এখানে
'পথের পাঁচালী' উপন্যাসে নিশ্চিন্দিপুর গ্রামে অপু-দুর্গার শৈশব কৈশোরের কাহিনি গড়ে উঠেছে।

অপরাজিত’ উপন্যাসে অপুর কলকাতাসহ বিভিন্ন অঞ্চলে জীবনযাপন, অপর্ণার সঙ্গে বিবাহ ও স্ত্রীর মৃত্যু। শেষে পুত্র কাজলকে নিয়ে গ্রামে ফিরে আসা।

'আরণ্যক' উপন্যাসে নায়ক সত্যচরণ বাংলা ও বিহারের সীমানায় জমি বিলির কাজ নেয় ও অরণ্যের সৌন্দর্যের স্মৃতিচারণা করে।

আদর্শ হিন্দু হোটেল’ উপন্যাসে রাধুনি বামুন হাজারী ঠাকুরকে নিয়ে রচিত।

ইছামতী' উপন্যাসে ইছামতী নদীর দুই তীরের মানুষজন ও নীলকুঠি সংক্রান্ত নানা ঘটনা।

তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায় :-

সমাপ্তি ও সূচনার যুগসন্ধিতে তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম। তাঁর সাহিত্যচর্চার কাল ১৯২৬-১৯৭১ খ্রিঃ পর্যন্ত বিস্তৃত। তারাশঙ্করের উপন্যাসের তিনটি লক্ষণীয় ধারা দেখা যায়


প্রথম উপন্যাস ‘চৈতালী ঘূর্ণি’ ১৯২৮-৩১ পর্যন্ত কারাবাস করেছেন আইন অমান্য আন্দোলনের সক্রিয় কর্মীরূপে। এটাই তাঁর প্রস্তুতির সময়।

১৯২৭-১৯৩৯ এই পর্বে রচিত তাঁর উপন্যাসগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য ‘পাষাণপুরী’, ‘নীলকণ্ঠ’, ‘রাইকমল’, ‘আগুন’।
উপন্যাসপ্রকাশিতpdf
চৈতালী ঘূর্ণি১৯২৮এখানে
পাষাণপুরী১৯৩৩এখানে
নীলকণ্ঠ১৩৪০এখানে
রাইকমল১৩৪২এখানে
আগুন১৯৩৭এখানে
এর পরেই ১৯৩৯-১৯৫০ এই পর্বে রচিত ‘ধাত্রীদেবতা', ‘কালিন্দী', ‘গণদেবতা’, ‘পঞ্চগ্রাম’ এখানে সমাজ রূপান্তরের ভাবনা সুস্পষ্ট।
উপন্যাসপ্রকাশিতpdf
ধাত্রীদেবতা১৯৩৯এখানে
কালিন্দী১৯৪০এখানে
গণদেবতা১৯৪২এখানে
পঞ্চগ্রাম১৯৪৪এখানে
'ধাত্রীদেবতা' র নায়ক শিবনাথ জমিদার সন্তান হলেও মায়ের দেশপ্রেম ও বিপ্লবী নেতার উপদেশে ব্রাত্যজনের উন্নয়নের ব্রত নেয়। 

'কালিন্দী’ তে দেখা যায় জমিদার সন্তান 'অহীন্দ্র' মার্কসীয় ভাবধারায় অনুপ্রাণিত।

অন্যদিকে ‘গণদেবতা’য় ভাঙনের চিত্র, 'পঞ্চগ্রাম' উপন্যাসে আছে আইন অমান্য আন্দোলনের উত্তেজনা। নায়ক দেবু ঘোষের কারাবাস ও শেষে শোষণহীন সমাজের স্বপ্ন।

১৯৫০ থেকে মৃত্যু পর্যন্ত তারাশঙ্করের উপন্যাসের তৃতীয় পর্ব। এই পর্বে আছে 'হাঁসুলী বাঁকের উপকথা', 'আরোগ্য নিকেতন', 'উত্তরায়ণ', 'সপ্তপদী', 'মহাশ্বেতা, ‘যোগভ্রষ্ট', 'মঞ্জুরী অপেরা', 'মহানগরী'।

উপন্যাসপ্রকাশিতpdf
হাঁসুলী বাঁকের উপকথা১৯৫১এখানে
আরোগ্য নিকেতন১৯৫৩এখানে
উত্তরায়ণ১৯৫০এখানে
সপ্তপদী১৯৬৪এখানে
মহাশ্বেতা১৯৬০এখানে
যোগভ্রষ্ট১৯৬৭এখানে
মঞ্জুরী অপেরা১৯৭১এখানে
মহানগরী১৯৭৫এখানে
রাঢ় অঞ্চলের বন্য প্রকৃতি আর জীবনোল্লাস মূর্ত 'হাঁসুলী বাঁকের উপকথা'র মধ্যে। 'সপ্তপদী' তে আছে প্রেম ও সত্যসন্ধানের সমন্বয়। তারাশঙ্করের মৃত্যু দর্শনের এক আশ্চর্য পরিচয় 'আরোগ্য নিকেতন' উপন্যাসটি। অনেকের মতে এটি তাঁর শ্রেষ্ঠ সৃষ্টি।

মানিক বন্দ্যোপাধ্যায় :-

মানিক বন্দ্যোপাধ্যায় বাংলা সাহিত্যের প্রধান ও শক্তিশালী ঔপন্যাসিক। বিশ বছরের সাহিত্যজীবনে তিনি লিখেছিলেন পঁয়ত্রিশটি উপন্যাস ও নানা গল্পগ্রন্থ। মানিকের উপন্যাস অবয়বে আছে বিজ্ঞানচেতনা, অন্তর্মনের জটিলতা অনুসন্ধান, সিগমুন্ড ফ্রয়েডের চেতন-অচেতনের প্রভাব ও মার্কসীয় ভাবনার অনুসন্ধান।
উপন্যাসপ্রকাশিতpdf
জননী১৯৩৫এখানে
দিবারাত্রির কাব্য১৯৩৫এখানে
পুতুল নাচের ইতিকথা১৯৩৬এখানে
পদ্মা নদীর মাঝি১৯৩৬এখানে
জীবনের জটিলতা১৯৩৬এখানে
অমৃতস্য পুত্রা১৯৩৮এখানে
শহরতলী১৯৪০এখানে
অহিংসা১৯৪১এখানে
প্রতিবিম্ব১৯৪৩এখানে
সহর বাসের ইতিকথা১৯৪৬এখানে
চিহ্ন১৯৪৭এখানে
চতুষ্কোণ১৯৪৮এখানে
স্বাধীনতার স্বাদ১৯৫১এখানে
আরোগ্য১৯৫৩এখানে
মানিকের প্রথম উপন্যাস 'জননী'। এখানে শ্যামা নামের এক নিম্নবিত্ত পরিবারের নারীর জননীরূপ আত্মপ্রকাশের চিত্রটি মূর্ত।

দিবারাত্রির কাব্য’ উপন্যাসটির গঠনশৈলী অভিনব। এখানে ‘দিনের কবিতা’, ‘রাতের কবিতা’ ও দিবা ‘রাত্রির কাব্য' এই তিনটি অধ্যায়ে উপন্যাসটি সম্পূর্ণ।

'পুতুল নাচের ইতিকথা' ও ‘পদ্মা নদীর মাঝি’ একই সময়পর্বে লেখা। ‘পুতুল নাচের ইতিকথা'য় গাওদিয়ার গ্রাম্য পরিবেশ বহুবিধ দ্বন্দ্বের টানাপোড়েনে ডাক্তার শশী-কুসুম-কুমু, গোপাল প্রমুখ মানুষের মনোরূপের প্রতিফলন। পদ্মার নিকটবর্তী অঞ্চলের পটে দরিদ্র-লাঞ্ছিত গোষ্ঠীবদ্ধ জীবনচিত্র দেখা যায় ‘পদ্মা নদীর মাঝি’ তে।

মধ্যবিত্ত এক বেকার যুবকের যন্ত্রণাময় চিত্র ‘জীবনের জটিলতা' য়।

সমাজের উচ্চবিত্ত শ্রেণির লাভ স্বার্থ ও আদর্শচ্যুতির নিষ্ঠুর বাঙ্গাত্মক চিত্র ‘অমৃতস্য পুত্রা’, নৈরাশাময় নেতিবাচক মনোভঙ্গি থেকে উত্তরণ দেখা যায় 'সহরতলী' উপন্যাসে।

'অহিংসা' উপন্যাসে সদানন্দ মহেশ চৌধুরী বিপিনের বিরোধের কারণ মাধবীলতা।

'প্রতিবিম্ব' উপন্যাসে ভারতের পাটিকর্মী হওয়ার সদিচ্ছা সত্ত্বেও কৃষক-মজুরদের সঙ্গে অনৈক্যের পরিচয় প্রতিফলিত।

'সহরবাসের ইতিকথা' য় শহর সম্পর্কিত বিভিন্ন সমস্যা, শহর ও গ্রামের পারস্পরিক চিত্র প্রতিফলিত।

১৯৪৬ সালের কলকাতায় রসিদ আলি দিবস উপলক্ষে ওয়েলিংটন স্কোয়ারে ছাত্র যুবকদের বিক্ষোভ নিয়ে লেখা 'চিহ্ন'। 'চিহ্ন' উপন্যাসের পটভূমি একটি রাজনৈতিক উপন্যাস।

মানিকের উপন্যাসে ফ্রয়েডীয় মনোবিকলনের সর্বোত্তম প্রকাশ 'চতুষ্কোণ' উপন্যাসে।

'স্বাধীনতার স্বাদ' ও 'আরোগ্য' উপন্যাসে কেশব ড্রাইভার নিজের পরিবারে ও অন্যত্র তার মানসিক রোগের কারণ ও চিকিৎসার পথ খুঁজে হয়রান হয়।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ