বণ্টন প্রণালি দ্বন্দ্ব কী? বণ্টন প্রণালি দ্বন্দ্ব কত প্রকার ও কি কি?

বন্ঠন প্রণালি সদস্যরা সর্বক্ষণ একটি জটিল আচরণিক ব্যবস্থার মধ্যে কাজ করে এবং অনেক সময় অনানুষ্ঠানিকভাবে কার্যক্রম পরিচালনা করে। প্রণালি সদস্যদের মাঝে প্রায়ই প্রণালি উদ্দেশ্য এবং ভূমিকা নিয়ে নিজেদের মাঝে মতপার্থক্য দেখা যায়।

বণ্টন প্রণালি দ্বন্দ্ব কাকে বলে :-

সরবরাহ-বণ্টন প্রণালি সদস্যদের মাঝে প্রণালি উদ্দেশ্য, ভূমিকা এবং ফলাফল নিয়ে যে মতপার্থক্য দেখা দেয় তাকে সরবরাহ বা বণ্টন প্রণালি দ্বন্দ্ব (Channel Conflict) বলে।

দ্বন্দ্ব মূলত সদস্যরা কে কোন কাজ করবে? কি উদ্দেশ্যে করবে? এবং নিজস্ব কার্যাবলির মূল্য কী হবে? ইত্যাদি নিয়েই সৃষ্টি হয়।
বণ্টন প্রণালি দ্বন্দ্ব কী

বণ্টন প্রণালি দ্বন্দ্ব কত প্রকার ও কি কি :-

বণ্টন প্রণালি দ্বন্দ্ব তিন প্রকারের হতে পারে। যথা -

১. উলম্ব প্রণালি দ্বন্দ্ব (Vertical Channel Conflict) :-

এক্ষেত্রে একই প্রণালির বিভিন্ন স্তরের ব্যবসায়ীগণের মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। যেমন: উৎপাদনকারীর বিক্রয় উদ্দেশ্যের সাথে খুচরা ব্যবসায়ী আথবা পরিবেশকের উদ্দেশ্যের ভিন্নতা।

২. আনুভূমিক প্রণালি দ্বন্দ্ব (Horizontal Channel Conflict) :-

প্রণালির একই স্তরের ব্যবসায়ীগণের মাঝে দ্বন্দ্বকে বোঝায়। যেমন: পেপসির ক্ষেত্রে নীলক্ষেতের খুচরা ব্যবসায়ী শান্তিনগরের খুচরা ব্যবসায়ীর তুলনায় কম মূল্যে কোমল পানীয় বিক্রয় করলে ঢাকার দুই এলাকার খুচরা ব্যবসায়ীদের মধ্যে অনুভূমিক প্রশালি দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয়।

৩. বহুপ্রণালি দ্বন্দ (Multi-channel Conflict) :-

অনেক সময় একই বিপণনকারী ব্যবহৃত বিভিন্ন বণ্টন প্রণালির মাঝে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়। যেমন: একই বাজারে বিপণনকারী প্রত্যক্ষভাবে এবং পরিবেশক বা ডিলারের মাধ্যমে পণ্য সরবরাহ করতে পারে। এক্ষেত্রে বিপণনকারীর সাথে পরিবেশকের দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হতে পারে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ